1. mahbub@krishinews24bd.com : krishinews :

” কৃষি অন্বেষণ”পর্ব-৪৬# বিষয়ঃ উচ্চমূল্যের ফসল একানী/একাংগি/সুগন্ধী আদা

  • আপডেট টাইম : Thursday, September 30, 2021
  • 281 Views
” কৃষি অন্বেষণ”পর্ব-৪৬# বিষয়ঃ উচ্চমূল্যের ফসল একানী/একাংগি/সুগন্ধী আদা
” কৃষি অন্বেষণ”পর্ব-৪৬# বিষয়ঃ উচ্চমূল্যের ফসল একানী/একাংগি/সুগন্ধী আদা

কৃষিবিদ কামরুল ইসলাম

একাঙ্গী (Kaempferia galanga L.) এটি জিনজিবারেসি (Zingiberaceae) পরিবারের অন্তর্ভুক্ত একটি হার্ব জাতীয় উদ্ভিদ। একে অনেক সময় বাংলায় ভুঁই চম্পা বা সুরভি আদা বলা হয়। তবে বাংলাদেশে এটি একাঙ্গী/একানী নামে বেশি পরিচিত। এর উৎপত্তিস্থল দক্ষিণ চীন অথবা ভারত বলে মনে করা হয়। বাংলাদেশসহ সমগ্র দক্ষিণ এশিয়াতে এর চাষ করা হয়।
© একাঙ্গীর পাতা পুরু, গোলাকৃতি এবং মাটির সঙ্গে লাগানো অবস্থায় থাকে। নতুন পাতা ক্ষুদ্র রাইজোম থেকে বের হয়ে। গ্রীষ্মকালে ১-২টি সাদা রঙের ফুল ফোটে। শীতকালে পাতা মরে যায় এবং রাইজোম সুপ্ত অবস্থায় চলে যায়। এর উৎপত্তিস্থল দক্ষিণ চীন অথবা ভারত বলে মনে করা হয়। বাংলাদেশসহ সমগ্র দক্ষিণ এশিয়াতে এর চাষ করা হয়। যেসব এলাকায় আদা ও হলুদ চাষ হয় সেসব এলাকায় একাঙ্গী চাষের যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে। তবে বাংলাদেশে কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা, যশোর, নড়াইল, মাগুরা ও ঝিনাইদহ ইত্যাদি এলাকাতে একাঙ্গীর চাষ হয়ে থাকে। এছাড়া চীন, ভারত, থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়াতে একাঙ্গীর চাষ হয়ে থাকে।
© এটি মসলা ফসল ও মাছের চার তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। এটিতে বিদ্যমান এসেনসিয়াল অয়েল বিভিন্ন কারি (Curry) তৈরিতে সুগন্ধি হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এটিতে বিভিন্ন পারফিউম ও কসমেটিক শিল্পে ব্যবহৃত হয়। একাঙ্গী রক্ত পরিষ্কারক, পাকস্থলীর ঘা সারাতে ও ঠাণ্ডাজনিত রোগ নিরাময়ে ব্যবহৃত হয়। বিভিন্ন পানীয় (Soft Drink) জাতীয় দ্রব্যাদি তৈরিতে এটি কাঁচামাল (Raw Materials) হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এটি মালয়েশিয়াতে মসলা ফসল হিসেবে চালের সুগন্ধি তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। থাইল্যান্ডেও এটি জনপ্রিয় মসলা হিসেবে স্যুপ ও বিভিন্ন (Curry) কারি তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। সব এলাকা হতে শুকনো একাঙ্গী বাংলাদেশে বিভিন্ন ওষুধ ও প্রসাধনী শিল্পে ব্যবহারসহ বিদেশে সীমিত আকারে রপ্তানি হয়।
© একাঙ্গীর উচ্চফলনশীল জাত উদ্ভাবনের উদ্দেশ্যে মসলা গবেষণা কেন্দ্রের বিজ্ঞানীরা একাঙ্গীর বেশ কয়েকটি লাইনের ওপর গবেষণা চালিয়ে বারি একাঙ্গী-১ নামে একটি উচ্চফলনশীল জাত উদ্ভাবন করেছে।
আন্তঃ মিশ্র ফসল হিসেবে একাংগী চাষঃ
============================
একাঙ্গী হালকা ছায়া পছন্দ করে কাজেই একাঙ্গীর সঙ্গে আন্তঃফসল হিসেবে মরিচ, গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ, লালশাক, শিম, লাউ ইত্যাদি ফসল চাষ করা যায়। এ ছাড়া নতুন ফলের (আম,পেয়ারা,লিচু ইত্যাদি) বাগানে সারি ফল গাছের মাঝে আন্তঃফসল/মিশ্র ফসল হিসেবে একাঙ্গীর চাষ করা যায়।
বারি একাঙ্গী-১ এর বৈশিষ্ট্যঃ
===================
এটি একটি বিরুৎ জাতীয় উদ্ভিদ। গাছের উচ্চতা ১০-১৫ সেন্টিমিটার। পাতার দৈর্ঘ্য ১২-১৫ সেন্টিমিটার, প্রস্থ ১০-১২ সেন্টিমিটার। রাইজমের দৈর্ঘ্য ৫.৫-৬.৫ সেন্টিমিটার। প্রতিটি রাইজমে ফিঙ্গারের সংখ্যা ৬-৮টি। ইহা রোগ ও পোকা সহনশীল। ফলন ১২-১৫ টন/ হেক্টর।
© এপ্রিলের ১ম সপ্তাহ থেকে মে মাসের ২য় সপ্তাহ পর্যন্ত একাঙ্গী লাগানোর উপযুক্ত সময়। বিলম্বে রোপণ করলে গাছের বৃদ্ধি ও ফলন কম হয়।
© ২০-২৫ গ্রাম ওজনের রাইজোম রোপণের জন্য উত্তম। বীজের হার নির্ভর করে রাইজোমের আকার আকৃতির ওপর। বীজ হিসেবে মোথা উত্তম ও ফলন বেশি দেয়। তবে ছড়া ব্যবহার করলে কম পরিমাণে বীজের দরকার হয়। সাধারণত প্রতি হেক্টরে ১২০০-১৪০০ কেজি বীজের প্রয়োজন হয়।
© সাধারণত জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি মাসে একাঙ্গী ওঠানো হয়। একাঙ্গী রোপণের ৯-১০ মাস পর গাছের পাতা যখন হলুদ রঙ ধারণ করে শুকিয়ে যায় তখনই একাঙ্গী সংগ্রহের উপযুক্ত সময় হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সংগ্রহের পর একাঙ্গীতে লেগে থাকা মাটি, শিকড়, গাছের কান্ড ও পাতা পরিষ্কার করতে হবে।
বাজারমূল্যঃ
=========
বাজারে ২০০০-৩০০০/- মণ একাংগি বিক্রয় হয়।
সে হিসেবে সাথী ফসল হিসেবে একাংগি চাষ লাভজনক।
® “কৃষি অন্বেষণ” কৃষি বিষয়ক জ্ঞান অর্জনের একটা উন্মুক্ত প্লাটফর্ম। এখানকার যে কোন লিখার ব্যাপারে গঠনমূলক সমালোচনা ও পরামর্শ সাদরে গ্রহনীয়৷

যোগাযোগ————-
কৃষিবিদ কামরুল ইসলাম
৩৫ তম বিসিএস কৃষি
কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার
বাঘা, রাজশাহী

নিউজ টি শেয়ার করে অন্যদের জানার সুযোগ করে দিন...

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2020 krishinews24bd

Site Customized By NewsTech.Com