1. mahbub@krishinews24bd.com : krishinews :

“কৃষি অন্বেষণ” পর্ব-৫০ বিষয়ঃ চরাঞ্চলে স্যান্ডবার’ (sandbar) পদ্ধতিতে মিষ্টি কুমড়া চাষ

  • আপডেট টাইম : Monday, January 17, 2022
  • 164 Views
“কৃষি অন্বেষণ” পর্ব-৫০ বিষয়ঃ চরাঞ্চলে স্যান্ডবার’ (sandbar) পদ্ধতিতে মিষ্টি কুমড়া চাষ
“কৃষি অন্বেষণ” পর্ব-৫০ বিষয়ঃ চরাঞ্চলে স্যান্ডবার’ (sandbar) পদ্ধতিতে মিষ্টি কুমড়া চাষ

কৃষিবিদ কামরুল ইসলাম

চরাঞ্চলে সবজি চাষাবাদ প্রক্রিয়া অন্য যে কোন স্থানে চাষাবাদ পদ্ধতি হতে ভিন্ন, যেহেতু চরাঞ্চলের কৃষি পরিবেশের অবস্থা অন্য যে কোন স্থানের চেয়ে ভিন্ন। চরাঞ্চলে মিষ্টি কুমড়া চাষাবাদের ক্ষেত্রে এক বিশেষ ধরনের চাষাবাদ কৌশলে অবলম্বন করতে হয় যাকে ‘স্যান্ডবার’ (sandbar) পদ্ধতি বলে।
© ‘স্যান্ডবার’ হলো নদীর পলি ও বালি দ্বারা প্লাবিত বড় অস্থায়ী ও উন্মুক্ত একটি স্থান যা বন্যার পরপরই পানি নেমে যেয়ে তৈরি হয়। সাধারণত নভেম্বর মাসের মাঝামাঝিতে যখন নদীর পানি আস্তে আস্তে কমতে শুরু করে তখন ‘স্যান্ডবার’ দৃশ্যমান হতে থাকে এবং ‘স্যান্ডবার’ পদ্ধতিতে মিষ্টি কুমড়ার আবাদ শুরু করা যায়।
© ‘স্যান্ডবার’ চাষাবাদ পদ্ধতি হলো অনেকটা মাদাতে সবজি চাষের মতোই। এক্ষেত্রে ৭-৮ ফুট দূরে দূরে সারি করে ৩ ফুট গভীর ও ৩ ফুট চওড়া করে গর্ত তৈরি করতে হয়। এরপর উক্ত গর্তে ৫-৬ কেজি পচা গোবর/অন্য যে কোন জৈব সার, টিএসপি ৭০ গ্রাম, এমওপি ৩০ গ্রাম, জিপসাম ৪০ গ্রাম, জিংক সালফেট ৪ গ্রাম, বোরিক এসিড ৪ গ্রাম, ম্যাগনেসিয়াম সালফেট ৫ গ্রাম, পিটের মাটির সঙ্গে ভালোভাবে মিশিয়ে ১০-১৫ দিন রেখে দিতে হয়।
© মিষ্টি কুমড়া দীর্ঘদিন বেঁচে থাকে এবং অনেক লম্বা সময়ব্যাপী ফল দিয়ে থাকে। কাজেই এই ফসলের সফল চাষ করতে হলে গাছের জন্য পর্যাপ্ত খাবার সরবরাহ নিশ্চিত করতে হয়। এরপর উক্ত পিটে ৪-৫টি বীজ বপন করতে হয় অথবা পলি ব্যাগে চারা করেও পিটে লাগানো যায় এবং প্রয়োজনীয় পানি দিতে হবে। চারা গজানোর পর ২টি চারা রেখে বাকি চারাগুলো তুলে ফেলে দিতে হবে।
© মাটির আর্দ্রতা সংরক্ষণের জন্য পিটকে খড় দিয়ে ঢেকে দিতে হবে এবং সপ্তাহে ২-৩ বার পানি দিতে হবে। চারা গাছের বয়স যখন ২৫ দিন হবে তখন প্রতি পিটে ৩৫ গ্রাম ইউরিয়া ও ২০ গ্রাম এমওপি সার প্রয়োগ করতে হবে। এভাবে ৩৫ গ্রাম ইউরিয়া ৪০ দিন, ৬০ দিন ও ৭৫ দিন বয়সে পিটে প্রয়োগ করতে হবে। প্রতিবারেই সার দেয়ার পরপরই পিট পানি দিয়ে ভিজিয়ে দিতে হবে। মিষ্টি কুমড়া পানির প্রতি খুবই সংবেদনশীল। বিশেষ করে ফল ধরার সময় প্রয়োজনীয় পানির অভাব হলে, ফল শতকরা প্রায় ৯০ ভাগ পর্যন্ত ঝরে যেতে পারে। শুষ্ক মৌসুমে প্রতি ৫-৭ দিন পরপর সেচ দেয়া প্রয়োজন। মিষ্টি কুমড়া গাছকে মাটিতে বাইতে দিতে হবে। তবে এ ক্ষেত্রে কচি ফল প্রথম থেকেই খড় বা শুকনো কচুরিপানার ওপর রাখার ব্যবস্থা করতে হবে, এতে করে প্রচন্ড গরমে বালি উত্তপ্ত হয়ে গেলেও ফল নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে।
© দেশের বিভিন্ন চরাঞ্চলে স্যান্ডবার পদ্ধতিতে মিষ্টি কুমড়া চাষ করে অনাবাদি জমি গুলো আবাদের আওতায় আনা সম্ভব।
® “কৃষি অন্বেষণ” কৃষি বিষয়ক জ্ঞান অর্জনের একটা উন্মুক্ত প্লাটফর্ম। এখানকার যে কোন লিখার ব্যাপারে গঠনমূলক সমালোচনা ও পরামর্শ সাদরে গ্রহনীয়৷

যোগাযোগ————-
কৃষিবিদ কামরুল ইসলাম
৩৫ তম বিসিএস কৃষি
কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার
বাঘা, রাজশাহী

নিউজ টি শেয়ার করে অন্যদের জানার সুযোগ করে দিন...

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2020 krishinews24bd

Site Customized By NewsTech.Com