1. mahbub@krishinews24bd.com : krishinews :

বাংলাদেশেই জাফরানের চাষ, পদ্ধতি উদ্ভাবন শেকৃবি গবেষকের

  • আপডেট টাইম : Saturday, August 28, 2021
  • 61 Views
বাংলাদেশেই জাফরানের চাষ, পদ্ধতি উদ্ভাবন শেকৃবি গবেষকের
বাংলাদেশেই জাফরানের চাষ, পদ্ধতি উদ্ভাবন শেকৃবি গবেষকের

জাফরান পৃথিবীর দামি মসলা গুলোর মধ্যে অন্যতম একটি দামি মসলা। এটি ‘রেড গোল্ড’ বা লাল সোনা নামেও পরিচিত। ইরান, তুরস্ক আফগানিস্থান গ্রিস, মিশর, চীন ছাড়াও বাংলাদেশের পাশের দেশ ভারতের কাশ্মীরে জাফরানের কম বেশি চাষ হলেও বাংলাদেশে এর চাষ হয়না বললেই চলে।

কিন্তু এবার বাংলাদেশের মাটিতেই মসলার ‘রাজা’ এই জাফরান চাষের দারুণ একটা সম্ভাবনা তৈরি করেছেন ঢাকার শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আ ফ ম জামাল উদ্দিন। উদ্যানতত্ত্ব বিভাগের এই শিক্ষক ও গবেষক আলো-আর্দ্রতা ও তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রিত কক্ষে জাফরানের ফুল ফোটাতে সক্ষম হয়েছেন। তা থেকে সফলভাবে সংগ্রহ করেছেন লাল রঙের স্টিগমা (গর্ভমুণ্ড)। এটাই মূলত জাফরান হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

 

এই অধ্যাপকের ভাষ্য, উন্মুক্ত জায়গায় উপযুক্ত পরিবেশেও জাফরান চাষ বেশ ব্যয়বহুল। সে হিসেবে তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রিত কক্ষে উৎপাদন খরচ আরেকটু বেশিই হওয়ার কথা। কিন্তু এই পদ্ধতিতে আবহাওয়াজনিত কারণে ফসল মারা যাওয়ার সম্ভাবনা কম। আর বছরে একাধিক বার ফলন ওঠানো যাবে।

তাই এই গবেষক মনে করেন, এর সঙ্গে বিশ্বব্যাপী জাফরানের বিপুল চাহিদা ও দামের বিষয়টি বিবেচনায় নিলে উপযুক্ত পৃষ্ঠপোষকতা পাওয়া সাপেক্ষে বাংলাদেশেই এর লাভজনক বাণিজ্যিক উৎপাদন সম্ভব।

অধ্যাপক জামাল আরও বলেন, শীতপ্রধান এলাকাগুলোতে যেভাবে উন্মুক্ত পরিসরে জাফরানের চাষ হয়, সেই প্রচলিত পদ্ধতিতে বাংলাদেশে জাফরান উৎপাদন করা সম্ভব না। কারণ অত্যধিক বৃষ্টিপাতের কারণে মাটির নিচে করম (কন্দ) দ্রুত পচে যায়। আবার মাটির আর্দ্রতার কারণে গাছের ভালো বৃদ্ধি হলেও ফুল আসে না।

এই গবেষক জানান,তিনি গত বছর জাপান থেকে জাফরানের পাঁচ শতাধিক করম আনান। প্রথমে সেগুলো ফ্রিজে নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় রেখে রোপণের উপযোগী করা হয়। পরে তা ঘরের মধ্যে প্লাস্টিক ও টিনের তৈরি ট্রেতে রোপণ করা হয়। দেখা যায়, প্রায় সবগুলো গাছেই ফুল এসেছে।

অধ্যাপক জামাল উল্লেখ করেন, ‘সাধারণত জাফরান চাষে বিস্তীর্ণ জায়গার দরকার হয়। কিন্তু আমরা পরীক্ষা করে দেখেছি অ্যারোপনিক্স পদ্ধতিতে (বাতাসের মাধ্যমে গাছের খাদ্য উপাদান সরবরাহ) একটা ছোট আকারের ঘরের মধ্যেই এক হেক্টর সমপরিমাণ জায়গার জাফরান উৎপাদন করা সম্ভব। কারণ এই পদ্ধতিতে রোপণ করা গাছের ট্রেগুলো উলম্বভাবে সাজিয়ে রাখা হয়। জায়গা লাগে কম।’

‘থাইল্যান্ড ও ভিয়েতনামেও নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে জাফরান উৎপাদনের চেষ্টা চলছে। কিন্তু ওরা এখনও সফল হয়নি। বাংলাদেশে আমরা যতটুকু সফলতা অর্জন করেছি, তাতে পৃষ্ঠপোষকতা পেলে এখন বাণিজ্যিক উৎপাদনেও যাওয়া যাবে’, বলে জানান শেকৃবির এই গবেষক।

বাংলাদেশে প্রতি বছর ঠিক কী পরিমাণ জাফরান আমদানি হয়, কত সংখ্যক মানুষ এর ক্রেতা- এর সঠিক কোনো পরিসংখ্যান পাওয়া যায়নি। তবে বাংলাদেশ পাইকারি গরম মসলা ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মো. এনায়েত উল্লাহর সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান, অত্যধিক দাম হওয়ার কারণে বাংলাদেশে জাফরানের ক্রেতা অনেক কম। এ কারণে আমদানিও হয় যৎসামান্য।

বার্তা২৪.কম

নিউজ টি শেয়ার করে অন্যদের জানার সুযোগ করে দিন...

এ জাতীয় আরো খবর..

© All rights reserved © 2020 krishinews24bd

Site Customized By NewsTech.Com